এটাই নেতা হওয়ার সময়, দম দেখান, ভ্যাকসিন দেন! প্রধানমন্ত্রী কে চ্যালেঞ্জ রাহুল গান্ধীর

#COVID-19 দেশ

নজর বাংলা ওয়েব ডেস্ক: করোনা মোকাবেলা নিয়ে সরকারকে সবচেয়ে বেশি আক্রমণ ও সতর্ক করেছেন প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী‌। যদিও রাহুল গান্ধীর সতর্কবাণী মানেননি কেন্দ্র সরকার। তবে রাহুল গান্ধীর এযাবৎ সমস্ত আক্রমণ সোশ্যাল মিডিয়াতে হলেও এবার সরাসরি সাংবাদিক বৈঠক করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কে তোপ দাগলেন রাহুল গান্ধী।

দেশে করোনার বাড়বাড়ন্তের জন্য বাংলার নির্বাচনে বিজেপির অত্যাধিক প্রচারকেই দায়ী করেছেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। এবিষয়ে তিনি বলেন “প্রধানমন্ত্রী ভ্যাকসিন না দিয়ে বাংলার ভোট প্রচার করে বেড়িয়েছেন। মাস্ক ছাড়াই লক্ষ লক্ষ মানুষের জমায়েত করেছেন, তাতে কী বার্তা গেল? “মোদি আসলে প্রধানমন্ত্রী নন। তিনি ইভেন্ট ম্যানেজার। কেন্দ্র সরকারের ভ্রান্ত নীতির জন্যই আজ দেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ দেখা যাচ্ছে। থালি বাজিয়ে, তালি বাজিয়ে মাস্ক ছাড়া ভাষণ দিয়ে, লড়াইয়ের স্ট্র্যাটেজি না বানিয়ে দেশে করোনা ছড়িয়েছেন মোদি।”

আর‌ও পড়ুন:

দৈনিক রাশিফল: আপনার ভবিষ্যতকে সমৃদ্ধ করতে অতীতে আপনি যে সমস্ত অর্থ বিনিয়োগ করেছিলেন তা আজ ফলস্বরূপ ফল পাবে (২৮/০৫/২১)

৩ জুন থেকে ফর্মফিলাপ, ১ জুলাই থেকে অ্যাকাউন্টে টাকা। ইয়াশ -এর ক্ষতিপূরণে তৎপর রাজ্য সরকার।

করোনার চাপ! ‘ইয়াশ’র জন্য কেন্দ্রের কাছে সাহায্য চাইবেন না নবীন পট্টনায়েক

ত্রাতা অধীর। রাজ্য সরকারের অনুমতিতেই ৫০০ শয্যার কোভিড হাসপাতাল হতে পারে মুর্শিদাবাদে

কেন্দ্র কে পরামর্শ দিয়ে রাহুল গান্ধীর বক্তব্য, “বিরোধী হোক, বা কোনও জেলাশাসক হোক, বা কোনও আমলা হোক, যেই ভাল বুদ্ধি দিচ্ছে, সেগুলি শুনুন। আপনার কাছে তথ্য নেই। যাদের কাছে আছে, তাঁদের প্রস্তাব শুনুন। আর সেই মতো কাজ করুন। সেই একবছর আগেই আমি টুইট করে বলেছিলাম টিকাকরণ শুরু করুন। আপনার লোকেরা ঠাট্টা করেছে। যা বলেছি তাতেই ঠাট্টা করেছে। আর পরে সেগুলোই সত্যি হয়েছে। রাহুলের বক্তব্য, দূরত্ব বিধি, লকডাউন বা মাস্ক পরা স্থায়ী সমাধান নয়। করোনার স্থায়ী সমাধান করতে পারে একমাত্র ভ্যাকসিন। তাই যেখান থেকে পারুন ভ্যাকসিন কিনুন।”

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে কংগ্রেস নেতার চ্যালেঞ্জ, “এটাই নেতা হওয়ার সময়। দম দেখান। শক্তি দেখান। ঘোষণা করুন, আমি সবাইকে ভ্যাকসিন দেব। সবার দায়িত্ব আমি নেব।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *